Ads by tnews247.com
নবীদের পুণ্যভূমি ফিলিস্তিন

নবীদের পুণ্যভূমি ফিলিস্তিন

Sun November 16, 2014     

ফিলিস্তিন এমন এক জনপদের নাম যার সঙ্গে জড়িয়ে আছে প্রাচীন ইতিহাসের বহু অধ্যায়। আধুনিক ইতিহাসেও এর ঘটনা পরম্পরার স্থান অপরিহার্য। পবিত্র কোরআনের অনেক জায়গায় ফিলিস্তিনের নাম উলি্লখিত হয়েছে। একে ভূষিত করা হয়েছে পবিত্র ও মুকাদ্দাস ভূখ- নামে। কোরআনের ব্যাখ্যাতাদের মতে, উত্তর থেকে দক্ষিণ এমনকি মিসর সীমান্ত পর্যন্ত সমগ্র ফিলিস্তিন কোরআনে উলি্লখিত আরাদি মুকাদ্দাসা তথা পুণ্যভূমি হিসেবে চিহ্নিত। এটি তেমনি তাফসির ও ইতিহাসবিদদের মতে, ইসলামে অত্যধিক গুরুত্ব ও মর্যাদাপূর্ণ হিসেবে খ্যাত বৃহত্তর শামের অন্তর্ভুক্ত এর রাজধানী ও প্রাণকেন্দ্র। প্রাচীন ও ঐতিহ্যবাহী এ পুণ্যভূমিতে বহু নবী জন্ম গ্রহণ করেছেন, অনেকে করেছেন মৃত্যুবরণ। অনেকের ওপর আসমানি প্রত্যাদেশ অবতীর্ণ হয়েছে এখানেই। কেয়ামতের আগে এখানে অবতরণ করেই ঈসা ইবনে মরিয়ম (আ.) মুসলিম বাহিনীর নেতৃত্ব দিয়ে দাজ্জাল বাহিনীকে হত্যা করবেন।

 

এতে অবস্থিত বায়তুল মুকাদ্দাস থেকেই মিরাজ রজনীতে মহানবী (সা.) ঊর্ধ্বলোকে গমন করেছেন। আল্লাহ বলেন, পবিত্র মহান সে সত্তা, যিনি তাঁর বান্দাকে রাতে নিয়ে গিয়েছেন আল মসজিদুল হারাম থেকে আল মসজিদুল আকসা (ফিলিস্তিন) পর্যন্ত, যার আশপাশে আমি বরকত দিয়েছি, যেন আমি তাকে আমার কিছু নিদর্শন দেখাতে পারি। তিনিই সর্বশ্রোতা, সর্বদ্রষ্টা। (সূরা বনি ইসরাইল : ১)

 

ইবরাহিম ও লুত (আ.) এর ঘটনায় আল্লাহ এ ভূখ- সম্পর্কে বলেন, আর আমি তাকে ও লুতকে উদ্ধার করে সে দেশে নিয়ে গেলাম, যেখানে আমি বিশ্ববাসীর জন্য বরকত রেখেছি। (সূরা আম্বিয়া : ৭১)।

ইতিহাসখ্যাত সম্রাট নবী সুলায়মান (আ.) ঘটনায় আল্লাহ বলেন, আর আমি সুলায়মানের জন্য অনুগত করে দিয়েছিলাম প্রবল হাওয়াকে, যা তার নির্দেশে প্রবাহিত হতো সেই দেশের দিকে, যেখানে আমি বরকত রেখেছি। (সূরা আম্বিয়া : ৮১)।

সাবা জাতির ঘটনা উল্লেখ করে আল্লাহ বলেন, আর তাদের ও যেসব জনপদের মধ্যে আমি বরকত দিয়েছিলাম সেগুলোর মধ্যবর্তীস্থানে আমি অনেক দৃশ্যমান জনপদ স্থাপন করেছিলাম এবং তাতে ভ্রমণ করার ব্যবস্থা নির্ধারণ করে দিয়েছিলাম। (তাদের বলা হয়েছিল) 'তোমরা এসব জনপদে রাত-দিন (যখন ইচ্ছা) নিরাপদে ভ্রমণ কর।' (সূরা সাবা : ১৮)।

 

আরেক সূরায় আল্লাহ বলেন, কসম 'তি্বন ও জায়তুন' এর। কসম 'সিনাই' পর্বতের, কসম এ নিরাপদ নগরীর। (সূরা তি্বন : ১-৩)। ইবনে আব্বাস (রা.) বলেন, তি্বন হলো শাম অঞ্চল, জায়তুন ফিলিস্তিন অঞ্চল, সিনাই সেই পর্বত যাতে মহান আল্লাহ মুসা (আ.) এর সঙ্গে কথা বলেছেন আর নিরাপদ শহর হলো মক্কা।

ঈসা (আ.) এর ঘটনায় আল্লাহ বলেন, আর আমি মরিয়মপুত্র ও তার মাকে নিদর্শন বানালাম এবং তাদের আবাসযোগ্য ও ঝর্ণাবিশিষ্ট এক উঁচু ভূমিতে আশ্রয় দিলাম। (সূরা মোমিনুন : ৫০)। ইবনে আব্বাস (রা.) বলেন, এটি বায়তুল মুকাদ্দাস, যা ফিলিস্তিনে অবস্থিত। ফিলিস্তিনের বায়তুল মুকাদ্দাস ছিল মুসলমানদের প্রথম কেবলা। পরবর্তীকালে তা কাবার দিকে ঘুরিয়ে দেয়া হয়। এ ঘটনা তুলে ধরে আল্লাহ বলেন, আকাশের দিকে বার বার তোমার মুখ ফেরানো আমি অবশ্যই দেখছি। অতএব আমি অবশ্যই তোমাকে এমন কেবলার দিকে ফেরাব, যা তুমি পছন্দ করো। সুতরাং তোমার চেহারা মাসজিদুল হারামের দিকে ফেরাও এবং তোমরা যেখানেই থাক, তার দিকেই তোমাদের চেহারা ফেরাও। (সূরা বাকারা : ১৪৪)।

এছাড়াও পবিত্র কোরআনের সূরা আম্বিয়ার ১০৫, সূরা আরাফের ১৩৭, সূরা ক্বফের ৪১, সূরা নূরের ৩৬, সূরা নাহলের ১৭ থেকে ১৮ ও সূরা হাদিদের ১৩ নং আয়াতে শাম অঞ্চলের কথা উল্লেখ হয়েছে বায়তুল মুকাদ্দাস যার অন্তর্ভুক্ত। হাদিসেও ফিলিস্তিনের মর্যাদা ও স্বাতন্ত্র্যের প্রমাণবাহী বহু বাণী বিবৃত হয়েছে। আগেই বলা হয়েছে, ফিলিস্তিন শামের অন্তর্ভুক্ত। আর শাম সম্পর্কে মহানবী (সা.) বিশেষ দোয়া করেছেন। যেমন আবদুল্লাহ ইবনে ওমর (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসূলুল্লাহ (সা.) বলেন, হে আল্লাহ, আমাদের শামে বরকত দিন, হে আল্লাহ, আমাদের ইয়েমেনে বরকত দিন। (সহিহ বোখারি : ১০৩৭)।

ফিলিস্তিনের মসজিদে আকসার মর্যাদা সম্পর্কে একাধিক হাদিস বর্ণিত হয়েছে, যেমন 'মসজিদে হারামে এক সালাত ১ লাখ সালাতের সমান, আমার মসজিদে (মসজিদে নববি) এক সালাত ১ হাজার সালাতের সমান এবং বায়তুল মুকাদ্দাসে এক সালাত ৫০০ সালাতের সমান।' (মাজমাউজ জাওয়াইদ : ৪/১১)।

আরেক হাদিসে বায়তুল মোকাদ্দাস ভ্রমণে উৎসাহিত করা হয়েছে। মহানবী (সা.) বলেন, 'তিনটি মসজিদ ছাড়া অন্য কোথাও (সওয়াবের আশায়) সফর করা জায়েজ নেই_ মসজিদুল হারাম, আমার এ মসজিদ ও মসজিদুল আকসা।' (সহিহ বোখারি : ১১৮৯; মুসলিম : ১৩৯৭)।

 

 

 

 






Facebook এ আমরা

আরও খবর


দান-সদকায় গুনাহ মাফ হয় রহমত, ক্ষমা ও মুক্তির মাস মাহে রমজান। এ মাসে সকল নেক কাজে অধিক সওয়াব লাভ করা যায়। এবাদতের পাশাপাশি দান-সদকা করলে তার সওয়াবও অনেক বেশি। রমজান মাসে একটি গুরুত্বপূর্ণ শিক্ষা ও করণীয় হলো এই দান-সদকা।

 

রোজাদারকে দয়া ও রহমতের শিক্ষা গ্রহণ করতে হবে মাহে রমজান দয়া ও করুণার মাস। দয়া ও রহমত হচ্ছে আল্লাহ তাআলার বিশেষ অনুগ্রহ। স্বয়ং রাব্বুল আলামিন মানুষকে রহম করেন এই মাসে। তিনি যাকে ইচ্ছা তার অন্তরে এই রহমত দান করেন। তা

 

বদরের যুদ্ধ ও সুমহান শিক্ষা রহমত, মাগফিরাত ও নাজাতের মাস রমজান। মোমিন মুসলমানদের জন্য এ মাসটি অনেক তাৎপর্যপূর্ণ। এ মাসেই পবিত্র কোরআন নাজিল হয়েছে। বিশ্বমানবতার মুক্তির দূত রহমতুল্লিল আলামিন হজরত মোহাম্মদ মুস্তাফা (সা.)-এর নবু

 

ইবাদত করতে হবে এখলাসের সঙ্গে মোমিনের জন্য মাহে রমজান আল্লাহর তাআলার পক্ষ থেকে অশেষ রহমত স্বরূপ। রমজানে রোজা রাখার পাশাপাশি বান্দা যত বেশি ইবাদত করবে তত বেশি সওয়াব পাবে। তাই আল্লাহর রহমত ও মাগফিরাত পেতে আমাদের বেশি বেশি ইবাদত ক

 

১৬তম রোজার সাহরি ও ইফতার সময় ধর্মপ্রাণ মুসল্লিরা ১৬তম রোজা পালন করবেন সোমবার। এই দিনের রোজা রাখতে সাহরি খেতে হবে রোববার দিবাগত রাত ৩টা ৩৮মিনিটের পূর্বে।

 

রমজান ধৈর্য ও সংযমের মাস দৈনন্দিন জীবনে আমরা নানা অনিয়ম, অসংযমী কাজ করে ফেলি। আমরা অধৈর্য হয়ে পড়ি এবং অন্যায় বা গুনাহের কাজে নিজেকে জড়িয়ে ফেলি। অনেক সময় আমরা বিপদে পড়েও ধৈর্য হারিয়ে ফেলি। এ অবস্থা থেকে বেরিয়ে আসার কিংবা নি

 

কুরান তেলাওয়াত


অন্যান্য

দান-সদকায় গুনাহ মাফ হয়

রোজাদারকে দয়া ও রহমতের শিক্ষা গ্রহণ করতে হবে

বদরের যুদ্ধ ও সুমহান শিক্ষা

ইবাদত করতে হবে এখলাসের সঙ্গে

১৬তম রোজার সাহরি ও ইফতার সময়

রমজান ধৈর্য ও সংযমের মাস

তওবা-এস্তেগফারের মাস মাহে রমজান

চলতি বছরের ফিতরা জনপ্রতি সর্বনিম্ন ৬৫ টাকা, এবং সর্বোচ্চ ১ হাজার ৯৮০ টাকা

জনপ্রতি ফিতরা সর্বনিম্ন ৬৫, সর্বোচ্চ ১৯৮০ টাকা

রমজানে ওমরা করলে হজ করার সওয়াব!

ইফতারের সময় দোয়া কবুল হয়

স্রষ্টার কাছে পূর্ণ আত্মসমর্পণ করতে হবে

সম্মান দেখানোর জন্য কী বসা থেকে উঠে দাঁড়ানো ইসলামে জায়েজ ?

রমজান সম্পর্কে কিছু কথা আপনি যানেন কী?

রমজানে তারাবির নামাজের নিয়ম, নিয়ত ও দোয়া

সকল জেলার প্রথম রোজার সেহরীর সময়

সন্ধ্যায় জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটির সভা অনুষ্ঠিত হবে

আদৌ পনেরো শাবানের রাত্রির কোনো ফজিলত বা বিশেষত্ব আছে কি?

প্রতিবন্ধীদের জন্য মসজিদ, রয়েছে খুৎবা শোনার ব্যবস্থা

হে তরুণ যাচ্ছ কোথায়? ফিরে এসো!

সম্পাদক: মেহারাব খান মুন
৩৮ গরিব এ-নেওয়াজ এভিনিউ, উত্তরা, ঢাকা ১২৩০. ইমেইল: info@tnews247.com
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত tnews247.com ২০১৪
Hosted & Developed by N. I. Biz Soft